বিকাশ লোন নীতিমালা সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন

বিকাশ, বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় মোবাইল অর্থ লেনদেন সেবা প্রদানকারী, তাদের গ্রাহকদের জন্য সহজ ও দ্রুত ঋণ প্রদান করে। বিকাশ ঋণ বিভিন্ন উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা যেতে পারে, যেমন ব্যবসা শুরু করা, শিক্ষাগত খরচ বহন করা, বা অপ্রত্যাশিত আর্থিক চাহিদা পূরণ করা।

বিকাশ লোন গ্রহণের যোগ্যতা

  • বিকাশ গ্রাহক হতে হবে
  • ন্যূনতম ১৮ বছর বয়সী হতে হবে
  • একটি বৈধ জাতীয় পরিচয়পত্র (NID) থাকতে হবে
  • নিয়মিত আয়ের উৎস থাকতে হবে
  • ভালো ঋণ গ্রহণ ও পরিশোধের ইতিহাস থাকতে হবে

বিকাশ লোনের ধরণ

বিকাশ বিভিন্ন ধরণের ঋণ প্রদান করে, যার মধ্যে রয়েছে:

  • সাধারণ ঋণ: ব্যক্তিগত ও ব্যবসায়িক উভয় উদ্দেশ্যেই ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • শিক্ষা ঋণ: শিক্ষাগত খরচ বহন করার জন্য।
  • উদ্যোক্তা ঋণ: নতুন ব্যবসা শুরু করার জন্য।
  • অ্যাগ্রিকালচার ঋণ: কৃষিকাজের জন্য।

বিকাশ লোনের পরিমাণ

লোনের পরিমাণ গ্রাহকের ঋণ গ্রহণের যোগ্যতা, আয়ের পরিমাণ, এবং ঋণের উদ্দেশ্যের উপর নির্ভর করে।

বিকাশ সুদের হার

লোনের সুদের হার ঋণের ধরণ, পরিমাণ এবং মেয়াদের উপর নির্ভর করে।

বিকাশ লোন পরিশোধ

বিকাশ ঋণ EMI (সমান কিস্তি) পদ্ধতিতে পরিশোধ করা হয়। গ্রাহকরা বিকাশ অ্যাপ, ওয়েবসাইট, অথবা যেকোনো বিকাশ এজেন্টের মাধ্যমে তাদের ঋণের কিস্তি পরিশোধ করতে পারেন।

বিকাশ লোন ঝুঁকি

যেকোনো ঋণের মতো, বিকাশ ঋণ গ্রহণের সাথেও কিছু ঝুঁকি জড়িত। যদি গ্রাহকরা তাদের ঋণের কিস্তি সময়মতো পরিশোধ করতে ব্যর্থ হন, তবে তাদের জরিমানা এবং অতিরিক্ত সুদের মুখোমুখি হতে হতে পারে।

আরো পড়ুন: বিকাশ অ্যাপ ডাউনলোড অফার

উপসংহার

বিকাশ ঋণ দ্রুত ও সহজে অর্থায়ন প্রদানের মাধ্যমে ব্যক্তি ও ব্যবসাগুলিকে তাদের আর্থিক লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করতে পারে। তবে, ঋণ গ্রহণের আগে, গ্রাহকদের সুদের হার, ঋণের শর্তাবলী এবং ঝুঁকিগুলি সাবধানে বিবেচনা করা উচিত।

বিকাশ ঋণ সম্পর্কে আরও তথ্যের জন্য, অনুগ্রহ করে বিকাশ ওয়েবসাইট https://www.bkash.com/ দেখুন অথবা 01711-000000 নম্বরে কল করুন।

Leave a Comment