আরবি মাসের নাম জানুন

ইসলামিক ক্যালেন্ডার, যা হিজরি ক্যালেন্ডার নামেও পরিচিত, এটি মূলত চন্দ্র ভিত্তিক ক্যালেন্ডার। এই ক্যালেন্ডারে মোট ১২ টি মাস রয়েছে, যা প্রধানত চাঁদের গতিবিধির উপর নির্ভর করে। প্রতিটি মাসের নাম এবং তার গুরুত্ব মুসলমানদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই আর্টিকেলে আমরা Arbi baro maser nam এবং তাদের বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

আরবী বারো মাসের নাম:

১. মুহাররম (محرم)

মুহাররম মাসটি ইসলামিক ক্যালেন্ডারের প্রথম মাস। এটি একটি অত্যন্ত পবিত্র মাস, এবং মুসলিমদের জন্য এই মাসে যুদ্ধ বা লড়াই করা নিষিদ্ধ। এই মাসের দশম দিনটি আশুরা নামে পরিচিত, যা বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ এবং বিভিন্ন ধর্মীয় উৎসবের সাথে যুক্ত।

২. সফর (صفر)

সফর মাস হলো ইসলামিক ক্যালেন্ডারের দ্বিতীয় মাস। যদিও এই মাসের সাথে বিশেষ কোনো ধর্মীয় উৎসব যুক্ত নেই, তবে কিছু সংস্কৃতিতে এটিকে দুর্ভাগ্যজনক মাস হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

৩. রবিউল আউয়াল (ربيع الأول)

রবিউল আউয়াল মাসটি ইসলামের নবী মুহাম্মদ (সা:) এর জন্ম মাস হিসেবে পরিচিত। ১২ রবিউল আউয়াল তারিখটি মুসলমানদের মধ্যে ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী বা মওলিদ উন-নবী হিসেবে উদযাপন করা হয়।

৪. রবিউস সানি (ربيع الآخر)

রবিউস সানি মাসটি তৃতীয় মাসের পরবর্তী মাস। এটি একটি সাধারণ মাস এবং এতে বিশেষ কোনো ধর্মীয় অনুষ্ঠান নেই।

৫. জামাদিউল আউয়াল (جمادى الأول)

জামাদিউল আউয়াল মাসটি ইসলামিক ক্যালেন্ডারের পঞ্চম মাস। এটি একটি সাধারণ মাস, এবং এতে বিশেষ কোনো ধর্মীয় উৎসব বা অনুষ্ঠান নেই।

৬. জামাদিউস সানি (جمادى الآخر)

জামাদিউস সানি মাসটি ষষ্ঠ মাস হিসেবে পরিচিত। এটি একটি সাধারণ মাস, তবে কিছু মুসলিম সম্প্রদায় এই মাসে কিছু ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করে থাকে।

৭. রজব (رجب)

রজব মাসটি একটি পবিত্র মাস হিসেবে বিবেচিত হয়। এই মাসের ২৭তম রাতটি মিরাজ নামে পরিচিত, যা নবী মুহাম্মদ (সা:) এর স্বর্গাভিযানের রাত হিসেবে পালিত হয়।

৮. শাবান (شعبان)

শাবান মাসটি রমজানের পূর্ববর্তী মাস এবং এটি মুসলমানদের জন্য প্রস্তুতির মাস। এই মাসের ১৫তম রাতটি শবে বরাত হিসেবে পরিচিত, যা বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ এবং এটি রাতভর ইবাদত করার জন্য পালিত হয়।

৯. রমজান (رمضان)

রমজান মাসটি ইসলামিক ক্যালেন্ডারের নবম মাস এবং এটি সবচেয়ে পবিত্র মাস হিসেবে বিবেচিত হয়। এই মাসে মুসলমানরা রোজা রাখে এবং এটি এক মাস ব্যাপী চলে। রমজানের শেষের রাতে ঈদুল ফিতর উদযাপিত হয়।

১০. শাওয়াল (شوال)

শাওয়াল মাসটি রমজান মাসের পরবর্তী মাস। রমজানের শেষের রাতের পর থেকে শাওয়ালের প্রথম দিনটি ঈদুল ফিতর হিসেবে উদযাপিত হয়।

১১. জিলকদ (ذو القعدة)

জিলকদ মাসটি ইসলামিক ক্যালেন্ডারের এগারোতম মাস। এটি একটি পবিত্র মাস এবং এই মাসে যুদ্ধ করা নিষিদ্ধ।

১২. জিলহজ (ذو الحجة)

জিলহজ মাসটি বছরের শেষ মাস এবং এটি হজ্বের মাস। মুসলিমরা এই মাসে হজ্ব পালন করে এবং জিলহজের দশম দিনে ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ উদযাপিত হয়।

আরো জানুন:

উপসংহার

Arbi 12 maser nam এবং তাদের বৈশিষ্ট্য মুসলমানদের ধর্মীয় জীবনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিটি মাসের নিজস্ব গুরুত্ব এবং তাৎপর্য রয়েছে, যা মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে ধর্মীয় এবং সামাজিক জীবনে প্রভাব ফেলে। এই মাসগুলি আমাদের জীবনকে ধর্মীয়ভাবে পরিচালিত করতে সহায়তা করে এবং আমাদের সৃষ্টিকর্তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে উদ্বুদ্ধ করে।

Leave a Comment